ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

0

Chanting Nati
“স্বাধীনতা তুমি” শিরোনামে দুই দিনব্যাপি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৫ উদযাপন করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে গতকাল ২৫ শে মার্চ রাত ৮ টায় ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চের ভয়াল কাল রাতকে স্মরণ করে ব্যতিক্রমধর্মী পরিবেশনা ড্রামা মব এর মাধ্যমে ‘‘যে রাত ভুলবার নয়” শিরোনামের মব দিয়ে দু’দিনব্যাপী কর্মসূচী শুরু হয় । ২৬শে মার্চের মুল অনুষ্ঠান শুরু হয় সকাল ৮টায় সমবেত কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন এর মাধ্যমে। দিনভর অনুষ্ঠানমালায় আরো ছিল স্বাধীনতা র‌্যালি, কবিতা আবৃত্তি, আলোচনা, খন্ড নাটক, আমাদের কথা-গল্প কবিতা ও সঙ্গীতে এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক আলোকচিত্র ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য ও এমিরিটাস প্রফেসর ডঃ আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর ডঃ সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ফেরদৌসি প্রিয়ভাষিনী। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা পদক প্রাপ্ত ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এডজাংকট প্রফেসর তাকায়িসু সুজুকি এবং পুষ্টি ও খাদ্য প্রকৌশল অনুষদের অধ্যাপক ডঃ মোঃ ফরমুজুল হক। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রধান ফারহানা হেলাল মেহতাব।
প্রফেসর ডঃ সৈয়দ আনোয়ার হোসেন তার বক্তৃতায় বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা স্বাধীনতা লাভ করেছি, আমরা রাজনৈতিক স্বাধীনতা পেয়েছি কিন্তু মুক্তি আজও পাইনি। আমরা গনতন্ত্রকে মুক্তি দিতে পারি নাই, ধর্মান্ধ রাজনীতি থেকে মুক্ত হইনি, এখানে সা¤প্রদায়িকতা লড়াই করছে, গণতন্ত্র এখানে ভাল নেই, মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ ভাল নেই। তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পর যা কিছু অর্জন করার দরকার ছিল তা আমরা অর্জন করতে পারিনি এজন্য তিনি রাজনীতিবিদদেরেই দায়ী করেন। রাজনীতিবিদদের ভেলকিবাজিতে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ হারিয়ে যাচ্ছে, তাকে উদ্বার করতে হবে। তিনি নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ ফিরিয়ে আনতে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হওয়ার আহŸান জানিয়ে বলেন, আমরা ৭১ এর বাংলাদেশ চাই।

Share.

About Author

Leave A Reply