ভারতে চলন্ত ট্রেনে নার্গিস বেগমকে ধর্ষণ করে হত্যার ঘটনায় রিট আবেদন

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঢাকা: ভারতে চলন্ত ট্রেনে বাংলাদেশের নার্গিস বেগমকে ধর্ষণ করে হত্যার ঘটনায় একটি রিট আবেদন করা হয়েছে।
বুধবার সকালে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদনটি দায়ের করেন আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী এলিনা খান। রিট আবেদনে নার্গিস বেগমের ময়না তদন্ত ও ভারত থেকে নার্গিসের লাশ বাংলাদেশে হস্তান্তরের সময় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়ার আবেদন করা হয়েছে।
রিটে সরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সচিব, খুলনা জেলার প্রশাসক(ডিসি), সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশের এক উপ-পরিদর্শক(এসআই)কে বিবাদী করা হয়েছে।
নিহতের মামী রাহেলা বেগম ও মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইডস ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে এ রিট আবেদনটি করা হয়েছে।
এদিকে, নার্গিসের পরিবার জানায়, নিজের ও জন্মান্ধ মায়ের চিকিৎসার জন্য ১০ বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে খুলনার নার্গিস বেগম গত ৯ মার্চ বৈধ পথে ভারত যান। চিকিৎসা শেষে আজমির শরিফও ঘুরে আসার ইচ্ছা ছিল তাদের।
গত ১০ মার্চ তারা হাওড়া স্টেশন থেকে দিল্লির উদ্দেশে ট্রেনে ওঠেন। ট্রেনটি কানপুর পৌঁছলে কয়েকজন যুবক দিল্লি এসে গেছে বলে তাদের ট্রেন থেকে নামিয়ে আনে। পরে নার্গিসকে প্লাটফর্মে আটকে রেখে তার মা-মেয়েকে জোরকরে ওই ট্রেনে তুলে দেয়া হয়। এরপর ট্রেন ছেড়ে দিলে পরিবারের সদস্যদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন নার্গিস। পরবর্তী সময়ে ভারতীয় লোকজনের সহায়তায় বাংলাদেশে ফেরেন নার্গিসের মা ও মেয়ে।
নার্গিসের পরিবার গত ১৯ মার্চ সোনাডাঙ্গা পুলিশের কাছ থেকে জানতে পারেন, নার্গিস মারা গেছেন। তার মরদেহ ভারতের উত্তর প্রদেশের বাধান রেলস্টেশনের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে অনেক নাটকীয়তার পর গত ২০ এপ্রিল সকাল ৯টার সময় বেনাপোল স্থলবন্দরের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নার্গিসের মরদেহ বুঝে পান তার পরিবার। ওইদিন দুপুরে স্থানীয় কবরস্থানে নার্গিসের মরদেহ দাফন করা হয়।
নার্গিসের মরদেহ দাফন করার আগে মরদেহ গোসল করান লাইলি বেগম। তিনি বলেন, ‘নার্গিসের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর চিহ্ন রয়েছে। বা পাঁয়ের গোড়ালি শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে চামড়ার সঙ্গে কোনো রকমে আটকে রয়েছে। ডান হাত কাঁধ থেকে ভাঙা। নার্গিসের দুই স্তনই কেটে ফেলা হয়।’

Share.

About Author

Leave A Reply