পুলিশের বিরুদ্ধে এবার সংসদেও ক্ষোভ

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঢাকা: পুলিশের কর্মকাণ্ড নিয়ে জাতীয় সংসদে ােভ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম ওমর।
তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, দেশে কি পুলিশি রাজত্ব কায়েম হয়েছে? মাছের রাজা ইলিশ, দেশের রাজা পুলিশ তাহলে কি এটাই সত্য?
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব মন্তব্য করেন।
নুরুল ইসলাম ওমর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আজ (মঙ্গলবার) একটি কাজে সচিবালয় যাই, আমার একটি কাগজ বাইরে থাকায় আমার ব্যক্তিগত সহকারীকে (পিএ) গাড়ি দিয়ে পাঠিয়ে দেই কাগজটি আনতে। কিন্তু পিএ যখন গাড়ি নিয়ে পুনরায় সচিবালয় ঢুকতে যায় তখন কর্তব্যরত পুলিশ তাকে ঢুকতে দেয়নি।
‘তারা (পুলিশ সদস্যরা) বলেছে এমপি সাহেব নাই তাই আপনাকে যেতে দেব না। এরপর পিএ আমাকে ফোনে চেষ্টা করে, আমি তাকে বলি যে দায়িত্বে আছে তাকে দাও, পুলিশ সদস্য বলেছে আমরা কারো সাথে কথা বলব না। কোনো কথাই তারা শোনেনি।’
‘পরে আমি পিএ কে বললাম ঠিক আছে তোমাকে যেহেতু আসতে দিচ্ছে না, তাহলে বাইরে থাক, আমি আসছি। এরপর তাকে বাইরেও যেতে দেবে না। পরে আমি যখন গেলাম তখন পুলিশ সদস্যদের বললাম ঘটনাটা কি ? দেশে কি মার্শাল ‘ল’ নাকি জরুরি অবস্থা জরি করা হয়েছে। আপনারা আসতেও দেবেন না, যেতেও দেবেন না ঘটনাটা কি? ’
এমপি ওমর বলেন, ‘এসময় আমি পুলিশ সদস্যদের বললাম আপনাদের একজন অফিসারকে ডাকেন, পরে একজন এসআইকে পেলাম, তাকে বললাম আপনি যেতেও দিচ্ছেন না, আসতেও দিচ্ছেন, তাহলে কি আমাকে গ্রেপ্তার করবেন, আটকে রাখবেন?’
তিনি বলেন, ‘এটা কোন ধরনের আচারণ, একজন এমপি’র সাথে পুলিশ কি আচরণ করবে সেটা জানে না। আজ আমার একটি কথাই বেশি মনে পড়ছে- কয়েকদিন আগে পত্রিকায় দেখেছি পুলিশ বলছে যে মাছের রাজা ইলিশ, দেশের রাজা পুলিশ। তাহলে কি এটাই সত্যি।
এজন্য তিনি সচিবালয়ের ওই পুলিশ সদস্যদের তদন্ত দাবি করেন।
তিনি অভিযোগ করেন, যারা এই ধরনের কাজ করছে তারা নিশ্চয়ই জামায়াত-শিবির বা বিএনপি’র লোক। তারা সংসদ সদস্যদের অবমাননা করতেই এই কাজ করছে। একটি সুষ্ঠু তদন্ত করে বিষয়টি বের করতে হবে। আর তা না হলে ধরে নেব পুলিশই দেশের রাজা। এই ঘটনা একজন এমপির সাথে করা মানে পুরো সংসদকে অবমাননা করা।

Share.

About Author

Leave A Reply