এটিএম জালিয়াতির ঘটনায় বিদেশিসহ ৩ ব্যাংক কর্মকর্তার রিমান্ড মঞ্জুর

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঢাকা: এটিএম বুথে জালিয়াতির মামলায় গ্রেপ্তার বিদেশি পিটার মাজুরেকসহ সিটি ব্যাংকের তিন কর্মকর্তার ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।
রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া চারজন হলেন- পোল্যান্ডের পিটার মাজুরেক এবং সিটি ব্যাংকের তিন কর্মকর্তা মোকসেদ আল মাকসুদ, রেজাউল করিম ও রেফাত আহমেদ ওরফে রনি।
সোমবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃত চারজনকে ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করে দশদিন করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানায় পুলিশ।
শুনানি শেষে প্রত্যেকের ছয়দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলামের আদালত।
আসামিদের পে জামিন চেয়ে আইনজীবী এইচ এম মাসুদ আদালতে বলেন, পিটারকে অমানবিক, নিষ্ঠুর কায়দায় নির্যাতন করা হয়েছে। তাকে সাত দিন আগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী গ্রেপ্তারের পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে আদালতে তোলা হয়নি, এতে দেশের প্রচলিত আইন লঙ্ঘন করা হয়েছে।
এ সময় শরীরের জামা খুলে জখমের চিহ্ন দেখান বিদেশি এই নাগরিক। এরপর তিনি বক্তব্য দিতে চাইলেও আদালত তা শোনেনি।
শুনানি শেষে বিচারক আসামিদের জামিনের আবেদন নাকচ করে দেন।
বাংলাদেশের তিনটি ব্যাংকের এটিএম বুথে স্কিমিং ডিভাইস বসিয়ে ওই তথ্য ব্যবহার করে কোন এটিএম কার্ড তৈরি করে সম্প্রতি গ্রাহকদের অজান্তে লাখ লাখ টাকা জালিয়াত চক্র হাতিয়ে নেওয়ার পর তার তদন্তে নামে ডিবি।
ইউসিবি ব্যাংক এই সংক্রান্ত মামলার এজাহারের সঙ্গে তাদের একটি এটিএম বুথের সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়া একটি বিদেশির ছবি পুলিশকে দিয়েছিল।
ওই ছবি শনাক্ত করে পিওতরকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।
পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, পিওতর পোল্যান্ডের একটি ভুয়া পাসপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছিলেন, তার জন্ম ইউক্রেনে। তার কাছে জার্মানির একটি পরিচয়পত্রও রয়েছে।
ব্যব্সায়িক কারণ দেখিয়ে ২০১৪ সালের ১৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশে আসা পিওতর ঢাকায় এক নারীকে বিয়ে করে গুলশানে ভাড়া বাড়িতে সংসার পেতেছিলেন বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান।
পুলিশের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রেপ্তার পিওতর একটি আন্তর্জাতিক জালিয়াত চক্রের সদস্য। বুলগেরিয়া এবং ইউক্রেইনের এক নাগরিককে নিয়ে এই জালিয়াতির পরিকল্পনা সাজিয়েছিলেন তিনি।

Share.

About Author

Leave A Reply