নোয়াখালীতে বেদে পল্লীতে হামলা-ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, পাল্টা-পাল্টি মামলা, আটক-৫

0

নোয়াখালীতে কিশোরের মৃত্যুর গুজবে বেদে পল্লীতে হামলা-ভাংচুর, ও অগ্নিসংযোগ, পাল্টা-পাল্টি মামলা, আটক-৫
নোয়াখালী প্রতিনিধি: তারেক আজিজ (১৭) নামে এক কিশোরকে গরম তেলে জ্বলসে দেয়ায় তার মৃত্যুর গুজবে নোয়াখালী সদর উপজেলার পূর্ব এওজবালিয়া গ্রামে বেদে পল্লীতে হামলা,ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে স্থানীয়রা।
এঘটনায় পাল্টা-পাল্টি মামলা করেছে উভয় পক্ষ। এঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে ৫জন গ্রামবাসীকে আটক করেছে পুলিশ। বর্তমানে ওই বেদে পলীøর পরিবেশ শান্ত রয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মামলা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে নোয়াখালী জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন খোলা কাগজকে জানান, সোমবার রাতে আহত তারেক আজিজের পিতা দোলোয়ার হোসেন বাহার স্থানীয় এলাকাবাসীর পক্ষে বাদী হয়ে ১৩ জনের নাম উল্লেখ ও আরো অজ্ঞাতনামা ৫০/৬০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।
অন্যদিকে, বেদে পল্লীর পক্ষ থেকে জাকের সর্দার বাদী হয়ে ২৫জনের নাম উল্লেখ ও আরো অজ্ঞাতনামা ১০০-১৫০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।
এর আগে গত সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত থেমে এ হামলা ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে।
এসময় বেদেদের ৩২টি টিনের ঘর, ১০টি তাবু ও ২৫টি খুপরি ঘরে ভাংচুর করে এবং ১১টি ঘর ও ১১০টি সাপ পুড়ে দেয় বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ৭০রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। তবে ওই সময় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
সন্ধ্যা ৬টার দিকে খবর পেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী ও জেলা প্রশাসক তন্ময় দাস ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে নগদ অর্থ সহায়তা দেন এবং সার্বিক সহায়তার আশ^াস দেন।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত শনিবার বিকালে বেদে পল্লীর এক কিশোরী স্থানীয় একটি দোকানে আইসক্রিম কিনতে গেলে দোকানী তাকে অশালীন মন্তব্য করেন।
এনিয়ে বেদেদের সাথে দোকানী ও স্থানীয় লোকজনের বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় তারেক আজিজ নামে এক কিশোরকে দোকানের গরম তেলের কড়াইয়ে ঝলসে দেয় বেদে লোকজন। সে বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
গত মঙ্গলবার দুপুরের দিকে এলাকায় তারেকের মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে পড়লে, তার স্বজন ও এলাকাবাসী বেদে পল্লীতে হামলা চালায়। এ হামলা বিকেল পর্যন্ত চলে।
বেদে সর্দার মো: ওয়াসিম অভিযোগ করে জানান,গত ৬ বছর থেকে শতাধিক বেদে পরিবার পূর্ব এওজবালিয়া গ্রামে নিজস্ব ভূমিতে স্থায়ী ভাবে বসবাস করে আসছে। বখাটেরা প্রায় সময় তাদের কিশোরীদেরকে উত্যক্ত করে আসছে। আজকের ঘটনায় তাদের ৩২টি টিনের ঘর, ১০টি তাবু ও ২৫টি খুপরি ঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায় স্থানীয় লোকজন। এছাড়া ১১টি ঘর ও ১১০টি সাপ পুড়ে যায়। হামলায় ৬ বেদে আহত হয়েছে।
সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান,কোন ধরণের সংঘাত এড়াতে এলাকায় অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। বর্তমানে ওই স্থানে পরিবেশ শান্ত রয়েছে। ওই ঘটনায় ৫ জন স্থানীয় গ্রামবাসীকে আটক করা হয়েছে।

Share.

About Author

Leave A Reply