মঠবাড়িয়ায় ধারালো অস্ত্রের কোপে শিক্ষক আহত

0

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় দোকান বাকি খাওয়ার পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে হুমায়ূন আকন ও তার বাহিনীর হাতে মো. জামাল হোসাইন (২৮) নামে এক শিক্ষক রক্তাক্ত জখম হয়েছেন এসময় তার বড়ভাই ও দোকানী খলিল আকন আহত হয়েছে। গত সোমবার দুপুরে উপজেলার বুখাইতলা বান্ধবপাড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। খলিল ও জামাল ওই গ্রামের মো. আব্দুর রব আকনের পুত্র।
সরেজমিন ও আহত সূত্রে জানাযায়, স্থানীয় খলিলের দোকান থেকে হানিফ আকনের ছেলে হুমায়ূন আকন বিভিন্ন সময় বাকিতে মালামাল ক্রয় করে। সোমবার সকালে খলিল দোকান বাকি টাকা হুমায়ূনের কাছে চাইলে ত্বর্কে জড়িয়ে পরে। এসময় হুমায়ূন খলিলকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। এঘটনায় খলিল সকালেই মঠবাড়িয়া থানায় এসে ডিউটি অফিসারকে মৌখিকভাবে অবহিত করেন। এতে ক্ষিপ্তহয়ে দুপুরে পরিকল্পিত ভাবে, হুমায়ূন তার ভাই শাহ জালাল ও তাদের বাহিনী পর্যায়ক্রমে দোকানের সামনে জড়ো হয়ে উদ্যেশ্যপূর্ণভাবে দোকানী খলিলের ওপর হামলা চালায়। এসময় তার ভাই স্কুল শিক্ষক জামাল হোসাইন তাকে বাঁচাতে এলে হুমায়ূন ‘দা’ দিয়ে জামালের পেটে কোপ দেয়। এতে গোটা এলাকায় আতংঙ্ক সৃস্টি। তাদের আত্মচিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে এলে হামলা কারিরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের ভর্তি করান। এব্যপারে হুমায়ূনের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে দোকানী খলিল আকন জানান।

মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ আহত ৪
মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় তুচ্ছ ঘটনা ও পারিবারিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় একই পরিবারের নারীসহ চার জন আহত হয়েছে। গত রবিবার রাত ১০ টার দিকে উপজেলার সাপলেজা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। হামলায় গুরুতর আহত শাহনাজ বেগমকে আশংকাজনক অবস্থায় মঙ্গলবার বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
সরেজমিন ও আহত সূত্রে জানাযায়, সাপলেজা গ্রামের মৃত. ফুলমিয়া শরীফের পুত্র বাবুল শরীফের শিশুপুত্র আবুবকর (৯) রবিবার দুপুরে প্রতিবেশী ইউনুচ শরীফের শিশুকন্যা সাবিনা (৭) কে খেলারছলে মাটি (কাঁদা) খাইয়ে দেয়। রাতে ইউনুচ শরীফ বাড়িতে এসে মাটি খাওয়ানো ও পুরাতণ ঘটনা খুন্তি দিয়ে ছেঁকা বিষয় উল্লেখ করে বাবুল শরীফ ও তার মাকে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করে। এ ঘটনায় বাবুলের সৎভাই মাছুম শরীফ প্রতিবাদ করলে ইউনুচ, জাহাঙ্গীর শরীফ ও তাদের দলবল দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে মাছুম শরীফ (৩৫),তার ভাই কাবুল শরীফ (৪০) স্ত্রী শাহনাজ বেগম (২৫) ও বড় ভাইর ছেলে রুবেল (২২) গুরুতর আহত করে। পরে ইউনুচ গং মাছুম শরীফের বসত ঘর ভেঙে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়েছে বলে মাছুম অভিযোগ করেন। স্থানীয়রা ওই রাতেই আহতদের উদ্ধার করে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে মাছুম শরীফ জানান।
এব্যপারে ইউনুচ শরীফ লুটপাটের কথা অস্বীকার করে বলেন, আমার সাত বছরের শিশুপুত্র আসাদুলকে ১৫ দিন হাতে গরম খুন্তি দিয়ে ছেঁকা দেয় আবুবকর রবিবার মেয়েকে মাটি (কাদা) খাইয়ে দেয়ার ঘটনায় কথার কাটাকাটির ত্বর্কে মাছুম গংই আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। আমার বড় ভাই জাহাঙ্গীর শরীফকে আহত করেছে। বর্তমানে বরিশাল শেবাচিমে তার চিকিৎসা চলছে।

Share.

About Author

Leave A Reply