শ্রদ্ধা ও ভাব গাম্ভীয্যের মধ্য দিয়ে সৈয়দ আশরাফের দাফন সম্পন্ন

0

কাজি আরিফ হাসান: সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম তাঁর বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলাম এক সময় বাংলাদেশের অন্যতম নেতা ছিলেন। জেল হত্যা নিহত ৪ নেতার অন্যতম একজন ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। সেই নেতার সন্তান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি আওয়ামীলীগে বিপদের সময় দলের গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখেছিলেন। তিনি যেমন মেধাবি তেমনি সহসিকতার সাথে আওয়ামীলীগে সাধারন সম্পাদক পদে থেকে দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। তিনি শুধু আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদকই ছিলেন না জনপ্রশাসন মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছে নিষ্ঠার সাথে। এদিকে সূত্রে জানা গেছে তিনি দীর্ঘ দিন যাবৎ অসুস্থায় ভুগছিলেন। সে কারনে চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশের সময় রাত ৯ টায় থাইল্যান্ডের যান একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে। গত ২ জানুয়ারি থাইল্যান্ডের এক হাসপাতালে চিকিৎসাধী অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্নাইলাহির রাজিওন)। তাঁর মৃত্যুতে আওয়ামীলীগ,ছাত্রলী,যুবলীগ,বাংলাদেশ তাঁতী লীগ,বাংলাদেশ আওয়ামী প্রজন্ম লীগ, রাজনৈতিক অঙ্গনে এবং কিশোরগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে আসে। শনিবার বাংলাদেশ সময় ৬:৩০ মিঃ তাঁর মরদেহ হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এসে পৌছানোর কথা আছে। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং বলেন আওয়ামীলী একজন ব্রোশিয়ান ও মেধাবী নেতাকে হারালো। রোব বার এই নেতার মৃতদেহ গুলিস্থান দলের কেন্দ্রিয় কার্যালয়ে এর পরে সকাল ১১ টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্রথম জানাজা পরানো হবে। উক্ত জানাজার নামাজে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদ ও মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং দলে সিনিয়র নেতা ও সর্ব শ্রেনির মানুষ অংশগ্রহন করে। এর পরে হেলিকাপ্টার যোগে এর পরে তাঁর মরদেহ কিশোরগঞ্জে শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে জানার নামাজের জন্য নেওয়া হবে এবং সেখানে জানাজা শেষে ঢাকা তাঁর মরদেহ আনা হবে তৃতীয় নামাজে জানাজার জন্য ময়মাসিংহ আঞ্জুমা ঈদগাহ মাঠে এবং বনানী কবরস্থানে তাঁর বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলামের কবরের পাশে চিরশোয্যয়িত করা হবে বলে জানা গেছে। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোক বার্তা প্রকাশ করেন। আমরা দেশবাসি তাঁর রুহের আতœার মাগফিরাত কামনা করি।

Share.

About Author

Leave A Reply