খাগড়াছড়িতে পর্যটণ কন্যা মায়াবিনী লেক পর্যটদের আকর্শনীয় স্থান

0

মো: লোকমান হোসেন পার্বত্য অঞ্চল প্রতিনিধি (খাগড়াছড়ি):-পকৃতির সেীন্দর্য্যে অপরূপ পাহাড় রাণী খাগড়াছড়ি ভাইবোনছড়া পর্যটন কন্যা মাযাবিনী লেকে,এখন আক্রশনীয় স্থান পর্যটদের। পর্যটকের ভীর আনান্দ উদযাপন যেন শেষ হবার নয়। তারই প্রমান মাযাবিনী লেক, আনন্দে উৎফ্লো ভ্রোমন পিয়াষী ও ভ্রমন পিয়াসুরা।
খাগড়াছআর পানছড়ি’র প্রায় মাঝা মাঝি স্থান ভাইবোনছড়া মায়াবিনী লেকের মায়ায় শোভাশিত করেছে পাহাড়ের কোনায় কোনায় ও পাহাড় বাসীর প্রতি ঘরে ঘরে এবং পাহাড়ী সীমানা পেরীয়ে সমর্গ্র বাংলার আনাছে-কানাছে মায়াবিনীর সুগন্ধ। তাইতো আনান্দ উদযাপন করার জন্য ভাইবোনছড়া’র মায়া অপরুপ সেীন্দর্য্যে পাহাড় গেরা পর্যটন কন্যা মায়াবিনী লেক, এখন আক্রশনীয় স্থান পর্যটদের। হাজার হাজার পর্যটকের ভীরে আনন্দিত ও উদভাসীত সাথে স্থানীয়রাও। আর তাদের সাথে যোগ হয়েছেন, নাজিরহাট, চট্রগ্রামের, রাঙ্গামাটির,জীনাইদারসহ, সিলেটের ১৪ জনের ১টি দল এবং ঢাকা থেকে আগত ভ্রমন পিয়াসুরা।
২৯৮ নং আসন খাগড়াছড়ি’র নির্বাচনে বিজয়ের উৎতাপে ব্যাক্তিগত অথবা দলগত উভয়েই বেরাতে বা গুতে আসতে পারেন, খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন পর্যটন ইস্পট গুলোতে। যেমন আলুটিলা শুরুংগ আলুটিলার র্ঝনা এবং জিরো মাইল জেলা পরিষদ পার্কসহ পানছড়ি রোড ভাইবোনছড়ার মায়াবিনী লেকে সাধারন মানূষের আন্নান্দ ভাগভাগীর স্থান। প্রয়োজনে আরো গুরতে যেতে পারেন, মাটিরাঙ্গা জ¦ল পাহাড় ও তাইনং তবলছড়ি বগবানটিলা।
পাহাড়ের উঁচু-নিচু ভাঁজে ভাঁেজ বাধ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পর্যটন কন্যা মায়াবিনী নামের এ লেকটি। স্বচ্ছ জলে খেলা করছে নানা প্রজাতির মাছ। প্রশ^স্ত লেকের স্বচ্ছ ও পরিস্কার পানিতে ভিন্ন ভিন্ন নেীকায় গুরে প্রকুতির সেীন্দয্য উপভোগ করছে ছোট বড় সকল বয়সের পর্যটক ও ভ্রমন পিয়াসুরা এমন উচ্ছাসের মায়াবিনী লেক ।
মায়াবিনী লেকের আশ পাশ গুরে দেখা যাবে মনমুগ্ধ কর, আম লিচু শাল গজারী ও বাশ বাগান গুরে আনান্দ উপবোগ করতে পারবেন প্রর্যটকরা।
মায়াবিনী লেকের পরিচালনা কমিটির আহব্বয়ক জানায়, স্থানীয় একতা মৎস্য সমবায় সমিতির দীর্ঘ দিনের স্বপ বাস্তবায়নের নাম মায়াবিনী লেক। নিজস্ব তহফিলের অর্থ সরকারী বে সরকারী অনুদান নিজ সদস্যাদের সেচ্ছায় শ্রর্ম মংশি মারমার অর্থ বাঁশ গাছ অনুদানে বর্তমান মায়াবিনী লেকের সৃষ্টি। ৩০ সদস্যর একতা মৎস্য সমবায় সমিতির পরিচালনায় চলছে মায়াবিনীর উন্নয়ন কার্যক্রম ও নিরাপত্তার ব্যস্তা। সেচ্ছায শ্রর্মে পর্যটকদের সেবা প্রদান ও নিরাপত্তা দান বিভিন্ন আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে র্সাবক্ষনিক্ষ যোগাযোগ পর্যাটকদের নিরবীগনে চলা ফেরার ব্যস্তা করা হয়েছে।
স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যান সহ উপজেলা প্রশাসন থেকে সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানের কথাও জানিয়েছেন পানছড়ি নির্বাহী অফিসার মো: তেীহিদুল ইসলাম বলেন, পর্যটদের সুবিধার জন্য লেকের সরক যোগাযেগ ও গোল ঘর তৈর করে দেওয়া হয়েছে ভবিষ্যতেও সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলেও যান তিনি।
খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাষক মো: শহিদুল ইসলাম বলেন, মায়াবিনী লেক’র মাধ্যমে কমিউনিটি ট্যুরিজম সম্প্রসারিত হচ্ছে এবং আরো হবে বলে আমার বিশ^াস। মায়াবিনী লেকের জন্য জেলা প্রশাষনের পক্ষ থেকে সহযোগিতা আগেও ছিলো এখনো থাবে।
নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে ভাইবোনছড়া মায়াবিনী লেকের কাচা কাছি,পানছড়ি রাবার ড্যাম ও এ এশিয়ার সর্ববৃহত বেীদ্ধ ধর্মীয় উপাসনালয় অরণ্য কুটির সহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান রয়েছে ভ্রমন পিযাসুদের।
যভোবে – যাবনে:- ঢাকা ও চট্রগ্রাম থেকে আগত পর্যটকরা, খাগড়াছড়ি শহর থেকে সরাসরি বাস অথবা সিএনজি,পিকাপে করে ২০ থেকে ২৫মি: যেতে পারবেন মায়াবীনি লেকে।

Share.

About Author

Leave A Reply