মঠবাড়িয়ায় উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আ‘লীগ ও স্বতন্ত্র প্যানেলের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

0

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচন পূর্ববর্তী ও পরবর্তী নানা চলমান সহিংসতার ঘটনায় আওয়ামীলীগ ও স্বতন্ত্র প্যানেলের প্রার্থীরা পরস্পরকে দায়ি করে পৃথক সংবাদ সম্মেলন করেছে।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সোমবার সকালে শহরের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে নৌকার সমর্থক কর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ জানান। অপরদিকে রোববার দিনগত রাত নয়টার দিকে স্বতন্ত্র প্যানেলের বিজয়ী প্রার্থীরা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন নির্বাচনকে ঘিরে হামলা, অগ্নি সংযোগের ঘটনা সাজানো দাবি করে প্রতিবাদ জানান। বিজয়ী স্বতন্ত্র উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সদস্য মো. রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, নির্বাচন পূর্ববর্তী ও পরবর্তী অগ্নি সংযোগের ঘটনা, মোটর সাইকেল পোড়ানো, দলীয় কার্যালয়ে হামলাসহ নানা ঘটনার মিথ্যাচার, গুজব সাজিয়ে স্বতন্ত্র (আনারস) প্যানেলের সমর্থকদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানি করা হচ্ছে।
এসময় নব নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান সিফাত ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান আইনজীবী নাসরিন জাহান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নেতারা ও দলীয় কর্মী সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।
ওই সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ, গত ১৮ জুন অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে জনগন প্রত্যক্ষ ব্যালটের মাধ্যমে মঠবাড়িয়া ভূমিদস্যু, সন্ত্রাস ও মাদক ব্যবসায়িদের প্রত্যাখান করেছে। জনগন ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে দুর্নীতিবাজ ও সন্ত্রাসীদেও প্রত্যাখান করেছে। জনগন কর্তৃক প্রত্যাখান পর ভোটে পরাজিতরা জনগনের দৃষ্টি ভিন্নখাতে করান হীন উদ্দেশ্যে নানা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নেয় পরাজিতরা। নির্বাচনে পরাজিতরা খড়ের গাদায় আগুন ও দলীয় অফিস নিজেরা ভাংচুর করে উল্টো স্বতন্ত্র কর্মী সমর্থকদের নামে একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করে চলে। পরাজিতরা মঠবাড়িয়াকে সন্ত্রাসী জনপদ হিসেবে চিহ্নিত করতে জনগনের ওপর নানা প্রতিশোধ নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। সামাজিক সাইটে নানা গুজব ছড়িয়ে সাজানো মামলা দায়ের করছে। হিন্দু বাড়ির খড়ের গাদায় আগুন ও মোটর সাইকেলে নিজেরা পরিকল্পিতভাবে আগুন দিয়ে তা সামাজিক সাইটে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে বিজয়ী স্বতন্ত্র প্যানেলের কর্মী সমর্থকদের নামে সাজানো মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। নির্বাচন পরবর্তী প্রতিটি ঘটনা পরাজিতরা নিজেরা ঘটিয়ে বিজয়ী প্যানেলের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। এরা মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভুলুন্ঠিত করছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা শাহ আলম দুলাল, এমাদুল হক খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মো. আফি-উল-হক, নব নির্বাচিত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান সিফাত, নব নির্বাচিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন জাহান ও আওয়ামীলীগ নেতা জাহিদ উদ্দিন পলাশ প্রমূখ।
অপর দিকে উপজেলা আওয়ামীলীগ স্বতন্ত্র প্যানেলের অভিযোগ প্রত্যাখান করে সোমবার সকালে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন পরবর্তী সকল সহিংসতার ঘটনায় স্বতন্ত্র প্যানেলের সন্ত্রাসী কর্মী সমর্থকদের দায়ি করেন। উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ বরেন।
লিখিত বক্তবে অভিযোগ করা হয়, স্বতন্ত্র প্যানেলের প্রার্থীরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি জামায়তের সাথে আঁতাতের মাধ্যমে নির্বাচনে অংশ নেয়। দলের বাইরে গিয়ে স্বতন্ত্র প্যানেলে নির্বাচনে দাড়ায়। যারা দলের বাইরে গিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেম না মেনে তারা রাজনীতিতে অবশ্যই ভুল করেছেন। নির্বাচনে নানা কারসাজির মধ্যে তারা বিজয়ী হওয়ার আ.লীগের অসংখ্য দলীয় নেতা ও নৌকার সমর্থকদের বাড়ি ঘরে আগুন, অফিস ভাংচুর, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর, সংখ্যালঘুদের বাড়ি ও খড়ের গাদায় অগ্নি সংযোগ, বাড়িঘর লুটপাট ও মা-বোনদের শ্লীতাহানীসহ দলীয় নেতা কর্মীদের মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ করে মঠবাড়িয়ায় সন্ত্রাসী জনপদ কায়েম করে। স্বতন্ত্র প্রার্থীর লালিত সন্ত্রাসী শতাধিক আ,লীগ নেতা কর্মীর ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত।
সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস, উপজেলা আ.লীগ যুগ্ম সম্পাদক খলিলুর রহমান আকন, পৌর আ.লীগ সাংগঠিনক সম্পাদক হেমায়েত উদ্দিন, পরাজিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাকিল আহম্মেদ নওরোজ ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মাকসুদা আক্তার বেবী বক্তব্য দেন।
বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীরা সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন পূর্ববর্তী ও পরবর্তী আগুন, হামলা ও মিথ্যা মামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিটি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করে দোষীদের বিচারের দাবি জানান।

Share.

About Author

Leave A Reply