খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে ভিত্তিপ্রস্তরের ৩ বৎসরেও নির্মাণ হচ্ছে না ফায়ার সার্ভিস স্টেশন

0

মোঃ লোকমান হোসেন:
খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণে চলছে নানা জঠিলতা। ভিত্তিপ্রস্তরের ৩ বৎসরেও নির্মাণ হচ্ছে না ফায়ার সার্ভিস স্টেশন। ২০১৭ সালে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজাতীয় শরনার্থী বিষয়ক টাক্সফোর্স চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী মর্যাদা) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (এমপি) ফায়ার সার্ভিসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু ভূমি জটিলতা ও হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের কারনে নির্মাণ হচ্ছেনা ফায়ার স্টেশন। ভোগান্তিতে এলাকার সাধারন জনগন। ফলে তিন বছর ধরে ঝুলে আছে এর নির্মাণ কাজ। এতে এলাকায় বড় ধরনের অগ্নি ঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয় ভুক্তভোগীরা।
জানা গেছে, গণপূর্ত বিভাগ এর অধীনে সারা দেশে গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা সদর স্থানে ১৫৬ টি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন স্থাপন করা সম্পূর্ণ হলেও মহালছড়ি কুমিল্লাটিলা নামক এলাকায় ২০১৭ সালে খাগড়াছড়ি গণপূর্ত বিভাগ টেন্ডার আহ্বান করেন। টেন্ডারের ভিত্তিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজাতীয় শরনার্থী বিষয়ক টাক্সফোর্স চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী মর্যাদা) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (এমপি) ফায়ার সার্ভিসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেও নির্মাণ হয়নি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন। পরবর্তীতে মোঃ আক্তার-উল আলম তার জায়গা দাবী করে হাইকোর্টে একটি রীট করেন। ফলে হাইকোর্টে স্তগিতাদেশের কারণে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে।
এ বিষয়ে মহালছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক রতন শীল জানান, আক্তার-উল আলম যে জায়গার দাবী করছেন তার নামে বৈধ কোন ভূমির কাগজপত্র নেই। এই জায়গাটি ফ্রিসল্যান্ডের সরকারি জায়গা। তার নামে কোন স্থায়ী বাসিন্দার সনদও নেই। ভূমি অফিসের রেজিষ্ট্রারেও তার নাম নেই।
মহালছড়ি উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মোঃ জসীম উদ্দিন ও সাংগাঠনিক সম্পাদক মোঃ সুলতান মাহমুদ জানান, মহালছড়ি বাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের। উক্ত কাজের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে দেন-দরবার শেষে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হলেও আক্তার-উল আলমের মামলার কারণে আশার মুখ দেখছেনা মহালছড়ি বাসী। প্রতিবছর অগ্নিদূর্ঘটনার ঘটনা ঘটছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগন।
এ বিষয়ে বিসমিল্লাহ ব্রিকফিল্ড এর মালিক মোঃ আক্তার-উল আলম বলেন, আমার ক্রয়কৃত ভূমির উপর ফায়ার সার্ভিস এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করায় আমি হাইকোর্টে রীট করেছি। হাইকোর্ট আমার আবেদন গ্রহণ করে ফায়ার সার্ভিস স্থাপনের স্থগিত আদেশ দেন। সাংবাদিক এক প্রশ্নের জবাবে ভূমি ফ্রিসল্যান্ডের এবং আঞ্চলিক দলিল মূলে ক্রয় করেন বলে জানান।
মহালছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) একি মিত্র চাকমা বলেন, ফায়ার স্টেশন করার জন্য জায়গা নির্ধারন করা হয়েছিল মহালছড়ি কুমিল্লাটিলা নামক এলাকায়। কিন্তু বিসমিল্লাহ ব্রিকফিল্ড এর মালিক মোঃ আক্তার-উল আলম তার জায়গা দাবি করে হাইকোর্টে রীট করেন। হাইকোর্ট থেকে স্থগিত আদেশ আসার পর আক্তার-উল আলম’কে ডাকা হলে তার জায়গার কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। বর্তমানে মহালছড়ি ফায়ার স্টেশনের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে ভূমিজটিলতা শেষ হলে ফায়ার স্টেশন এর কার্যক্রম চালু হবে।

Share.

About Author

Leave A Reply