বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনের কার পার্কিং এ দোকান বসিয়ে লাখ টাকা চাঁদা

0

বিশেষ প্রতিনিধি :
সবুজবাংলা২৪ডটকম, ঢাকা : বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনের কার পাকিং-এ গাড়ি প্রবেশ স্থানে প্রতিনিয়ত বসছে অবৈধ ভাসমান দোকান। পুরো কার পার্কিং দেড় শতাধিক হকারের দখলে। ভ্যান গাড়িতে করে হকাররা বিক্রি করে দেখা যায় শীতের পোষাক, জুতার দোকানসহ নানা ধরনের সামগ্রী। যার কারনে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনের কার পার্কিং-এ কোন গাড়ি প্রবেশ করতে দেয়া হয়না। সূত্রে জানা যায়, রাজনৈতিক নেতা, স্থানীয় কাউন্সিলর ও পুলিশের ছত্রছায়ায় কার পার্কিং এর জায়গা হকারদের দখলে পরিণত হয়েছে। হকারদের কাছ থেকে প্রতিদিন আনুমানিক লক্ষাধিক টাকা চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। এ বিষয়ে কিছু দিন আগে প্রথম আলো গ্রুপে একটি প্রতিবেদন দেখা গেলে কয়েক দিন এই ফুটপাত বন্ধ থাকলেও পুনরায় আবার বসে এই একই জায়গায় ফুটপাত।
রেলওয়ে পুলিশ জানায়, ‘কার পার্কিং এর জায়গায় এবং আশপাশে হকার উচ্ছেদে অভিযান নিয়মিত চালানো হয়।’ তবে উচ্ছেদের কিছু সময় পরে আবারও হকারদের দখলে চলে আসে জায়গাটি। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করে নিয়মিত চলছে তাদের ফুটপাতের চাঁদাবাজী। ফলে উচ্ছেদ অভিযানে কোনো ফল হয় না। এদিকে প্রতিদিন হাজারও মানুষের চলাচল করতে দেখা যায় আর এ সব হকারদের কারনে অনেক লোকের সমগমও দেখা মেলে এর ফলে পথচারি ও হকারদের ধাক্কায় প্রতিনিয়ত দেখা যায় সংঘাত। এমনকি ফুটপাত জমে ওঠে সন্ধার পরে যা রাত্র ১১ টা পর্যন্ত এ সব দোকান গুলো খোলা থাকে এবং এমনকি চলার পথে মাদক ব্যবসাও করতে দেখা যায় যা চোখের পলকেই তার উধাও হয়ে যায়।
আরো তথ্য মেলে বর্তমান এই ফুটপাত নিয়ন্ত্রন করেন আকতার। তার ছত্রছায়ায় চলছে এ চাঁদা ওঠে প্রতিদিন। কিছু দিন পূর্বে (১৭ জানুয়ারি রবিবার)সাংবাদিকরা তথ্যের জন্য ফিরোজ(চীপ ইনেস্পেক্ট,আরএনবি) তার কাছে গেলে তিনি বলেন,তিনি বলে ফুটপাত নিয়ন্ত্রন করেন আক্তার তার সাথে কথা বলেন,এদিকে আক্তারকে মুঠোফোনে কল করে তার সাথে দেখা করলে তিনি তখন উত্তর দেন কিছু সময় আগেই এই ফুটপাত থেকে তোলা টাকার কিছু অংশ আর এনবির ফিরোজ সাহেবকে দিয়ে আসলেন এবং টাকার পরিমান জানতে চাইলে তিনি বলেন ২০ হাজার টাকা ফিরোজ সাহেবকে দিয়েছেন আকতার যা তিনি ভিডিও রেখেছেন বলে সাংবাদিকদের জানান। এবং আকতার সাংবাদিকদের আরো বলেন পারলে ফিরোজ সাহেবের বিরুদ্ধে রিপোর্ট করেন এবং চিল্লিয়ে আকতার বলে আমি একা এই চাঁদার টাকা খাই না আপনার ফিরোজ সাহেবকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন না ? প্রতিদিন তসলীম, খান শাহিন,লাইনম্যান সবুজ এর আকতারের নেতৃত্বে ফুটপাতের দোকান থেকে চাঁদা তোলে। এ বিষয়ে বিমানবন্দর স্টেশনর আমিনুল ইসলাম(এসআই,জিআরপি) সাংবাদিকদের জানান ,আমরা নিয়মিত অভিযান চালাই কয়েক দিন পর আবর বসে ঐ হকাররা। এমনকি জানা যায় কখনো কখনো যদি ভিআইপি যাত্রি থাকে তখন আবার ফুটপাত খালি দেখা যায় এবার আপনারাই বলেন কাদের ইশারায় ফুটপাত বসে ?

Share.

About Author

Leave A Reply