শ্বাসকষ্ট হাঁচি কাশিতে কুস্ত ফুল

0

স্বাস্থ্য ডেস্ক :
সবুজবাংলা২৪ডটকম : শ্বাসকষ্ট, হাঁচি-কাশি, গলা ব্যথার প্রোফেটিক মেডিসিন (হাদিসে বর্ণিত ওষুধ) কুস্ত। কুস্ত নামের গাছের শিকড় বহু বছর ধরে গলা ব্যথা ও শ্বাসকষ্টের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। নবী হজরত মুহাম্মদ সা: ও তাঁর বেশ কয়েকজন সাহাবি কুস্তকে হাঁচি-কাশি, শ্বাসকষ্ট, গলা ব্যথার ওষুধ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। বিশুদ্ধতম হাদিস বই বুখারি শরিফে এই হাদিসগুলো রয়েছে। কুস্ত আরবিতে কুদ আল হিন্দ নামে পরিচতি। এ ছাড়া আবু দাউদ শরিফেও এর বর্ণনা আছে। কেউ কেউ বলছেন, করোনা সংক্রমণ যেহেতু ফুসফুস ও গলায় প্রদাহ তৈরি করে সে কারণে করোনা সংক্রমণেও কুস্ত কাজ করতে পারে। কারণ মুসলমানরা বিশ্বাস করেন নবী মুহাম্মদ সা: যা বলেছেন, তার সবই আল্লাহর পক্ষ থেকেই বলেছেন।
বুখারির ৫ হাজার ৬৯২তম হাদিসে উম্মে কাইস বিনতে মিহসান (রা:) বলেন, নবী হজরত মুহাম্মদকে সা: বলতে শুনেছি, তিনি বলেছেন- কুদ আল হিন্দ দিয়ে চিকিৎসা করো। গলার সমস্যায় এবং কণ্ঠ ও ফুসফুসের সূক্ষ্ম ঝিল্লির প্রদাহে এটা মুখে ভেতরের এক অংশে রাখো। ৭টি রোগকে এটি সাড়াতে পারে।’
বুখারির ৫ হাজার ৬৯৬ নম্বর হাদিসে আনাস (রা:) নবী মুহাম্মদ সা থেকে বলেছেন, তোমাদের সন্তানদের গলাব্যথা হলে তাদের গলায় চাপ না দিয়ে কুস্ত দাও। আবু দাউদ শরিফে মিহসানের কন্যা উম্মে কাইস (রা:) বর্ণনা করেছেন, আমি আমার ছেলেকে নবীর সা: কাছে আনলাম। তখন আমি গলা ফুলে যাওয়ায় তার আল জিহবায় চাপ দিয়েছিলাম। নবী সা বললেন, কেন তোমরা তোমাদের ছেলেদের কষ্ট দাও? কুদ আল হিন্দ ব্যবহার করো। এতে ৭টি রোগের উপসম রয়েছে। এর মধ্যে ফুসফুসের সমস্যা একটি। আবু দাউদ (র) বলেন, কুদ আল হিন্দ বলতে তিনি ভারতীয় কুস্তকে বুঝিয়েছেন।
গলার সংক্রমণবিষয়ক আরেকটি হাদিস বর্ণনা করেছেন হজরত জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রা:)। তিনি বলেন, একদিন নবী সা: তাঁর বাড়িতে আসলেন এবং দেখলেন একটি ছেলেকে তাঁর কাছে আনা হয়েছে। ছেলেটির মুখ ও নাক থেকে রক্ত ঝরছিল। নবী সা: জানতে চাইলেন কী হচ্ছে? আয়িশা (রা:) বললেন, ছেলেটি গলা সংক্রমণে ভুগছে। নবী বললেন, ভবিষ্যতে যেকোনো ছেলে এ রকম গলার সংক্রমণে অথবা মাথা ব্যথায় ভুগলে ওর মধ্যে কালো কুস্ত ঘষো এবং ছেলেটাকে এটা চুষতে দাও। আয়েশা (রা:) নবী মুহাম্মদের সা:-এর কথামতো কাজ করলেন এবং শিশুটি স্বাস্থ্যবান (সুস্থ) হয়ে গেল। (মুসনাদ আবি ইয়ালা : ১৯১২)। কুস্ত বা কুদ আল হিন্দবিষয়ক আরো কয়েকটি হাদিস রয়েছে।

Share.

About Author

Leave A Reply