ভান্ডারিয়ায় ছগীর গাজীর অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসী, শিশু শিক্ষার্থীকে হাতুরী পেটা

0

ভা-ারিয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভা-ারিয়া উপজেলার উত্তর তেলিখালি গ্রামে তাইমিয়া বীন আনোয়ার খান  (১১) নামে এক শিশু শিক্ষার্থীকে হাতুরি পেটা করে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গুরুত্বর আহত শিশুটি ভা-ারিয়া হাসপাতালে গত ৫ দিন ধরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কাতরাচ্ছে। শিশুটির বাবা মোঃ আনোয়ার খান বলেন, আমার বাড়ী উপজেলার উত্তর তেলিখালী গ্রামে। আমি চাকুরীর সুবাদে বাড়ী থাকিনা। আমার স্ত্রী দুই সন্তান নিয়ে একা বাড়ী থাকে। কিন্তু একই গ্রামের আমির গাজীর ছেলে জসিম গাজী ও ছগীর গাজী জমিজমা ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে প্রায় রাতে আমার স্ত্রী সন্তানকে ভয় ভীতি দেখায় আমি তার প্রতিবাদ কারায় গত বুধবার (৬  অক্টোবার) দুপুরে আমার ছোট ছেলে তাইমিয়াকে একা পেয়ে উক্ত জসিম গাজী ও ছগীর গাজী হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। চিৎকার শুনে আমি দৌরে গিয়ে দেখি আমার ছেলে তাইমিয়া অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পরে আছে এবং আমি ছগীর গাজির কাছে জানতে চাইলে তিনি আমাকে উল্টো মারধর করে। পরে আহত সন্তান ও স্থানীয় লোকজন নিয়ে আমি তেলিখালি ইউনিয়ন পুলিশ ক্যাম্পে নিয়ে গেলে সেখান থেকে চিকিৎসার জন্য ভা-ারিয়া উপজেলা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়। সেখানে ৫ দিন ধরে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে নেয়ার জন্য কর্তব্যরত চিকিৎক ডা: আলী আজিম পরামর্শ দিয়েছেন। শিশুর বাবা মোঃ আনোয়ার খান, উক্ত বখাটে ছগীর গাজী আমার প্রতিবন্ধী বাগনী সনিয়াকে বিয়ে করার জন্য উত্তক্ত করছে। তাকে বিয়ে করতে না পারায় আমাকে ও আমার পরিবারকে বাড়ী ছাড়ার জন্য ভয়ভীতি ও প্রান নাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। শিশু পিটানো সহ এসব অভিযোগে ভা-ারিয়া থানায় মামলার প্রস্ততি চলছে। সূত্রে জানায়, এই ছগীর গাজী একাধীক বিয়ে করে বহু নারীর জীবন শেষ করেছে এবং তিনি ও তার ভাই জসিম গাজী এলাকার বেশ কয়েক পরিবার, বহু নিরিহ জেলে পরিবারে ওপর নির্মম নির্যাতন সহ বহু অপকর্মের সাথে জড়িত। তারা দিনদিন অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে দলবল নিয়ে। এসব ঘটনায় এলাকাবাসী ভয়ে মুখ খুলতে  পাড়ছেনা বলে অভিযোগ রয়েছে। তাদের অত্যাচার থেকে বাচার জন্য এালাবাসী প্রশাসনের সু-দৃস্টি কামনা করেছেন। এ বিষয়ে অভিযুক্ত জসিম গাজী জানান, তার ভাই বহু বিবাহ করেছে কিন্তু এখন একটাও নেই। একটি শিশুকে হাতুরী পেটা ও গ্রামবাসীর ওপর অত্যাচারের কথা জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান।

ভা-ারিয়ায় সরকারী খাল ও মসজদি সংলগ্ন খালের সিড়ি দখলের পর পাকা ভবন নির্মানের অভিযোগ
পিরোজপুরের ভা-ারিয়া উপজেলার নদমূলা ইউনিয়নের মাঝিবাড়ী বাজার সংলগ্ন সরকারী খাল ও মসজিদের পাকা সিড়ি দখল করে পাকা ভবন নির্মান করার অভযিোগ পাওয়া গছে।ে স্থানীয় মাঝী বাড়ী বাজার ব্যবসায়ী সহ সকলরে সুবধিার জন্য সরকারী ভাবে মাঝি বাড়ি খালরে উপর নির্মিত পাকা সিড়ি হওয়ার পর থেকে বছরের পর বছর ধরে মসজিদের মুসল্লীরা ওযু কার সহ স্থানীয় মাঝি বাড়ী বাজার ব্যবসায়ীরা গোসল করা সহ এলাকার শত শত নারী,পুরুষ ও খালের পাশেই অবস্থিত মাঝি বাড়ী দাখিল মাদ্রসার শিক্ষক শিক্ষার্থীরা এই সিড়ি দিয়ে খালের পানি ব্যবহার করে আসছে।  কন্তিু স্থানীয় ভূমি দস্যু ক্ষ্যত প্রভাবশালী পারূল বগেম ও তার ছলেে প্রন্সি তালুকদার  এবং আবদুল লতফি তালুকদার এর ছলেে বাদল তালুকদার সহ এলাকার কছিু কুচক্রি মহলকে সাথে নয়িে খালের ওপর নির্মিত জনগুরুত্বপূর্ণ খালের পাওে ব্যবহারকৃত সিড়ি দখল করে রাতের আধারে পাকা ভবনের কাজ চালয়িে যাচ্ছ।ে এতে শিক্ষক খন্দকার রেজাউল করিম ,ব্যবসায়ী সেলিম,মসজিদের ইমাম সিড়ি নির্মানে বাধা দিলেও তারা না শুনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। রবিবার স্থানীয় ইউপি সদস্য সওকত হোসেন সেপাহী জানান, খাল দখল করে কাজ শুরু কথা শুনে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধের জন্য বলে আসি। স্থানীয় মসজদিরে মুসল্লী রুহুল আমিন তালুকদার, খালেক খন্দকার, জাকির হোসেন খন্দকার, আব্দুল জলিল খন্দকার, দুলাল খন্দকার, কাঞ্চন আলী ও সওকত হোসেন তালুকদারসহ গ্রামবাসীর দাবী সরকারী খালের সিড়িটি যেনো দখল করতে না পারে তার জন্য কর্তৃপক্ষরে কাছে জোর দাবি জানান।

Share.

About Author

Leave A Reply